ঢাকা      বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৯ আশ্বিন ১৪২৭
IMG-LOGO
শিরোনাম

স্থায়ী নদী ভাঙন রোধে ডেল্টা প্ল্যান ঘোষণা করেছে সরকার: দুর্যোগ প্রতিমন্ত্রী (ভিডিও প্রতিবেদন)

IMG
12 September 2020, 8:58 PM

রাজীব হোসেন রাজন, শরীয়তপুর, বাংলাদেশ গ্লোবাল: দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান বলেছেন, প্রতি বছর প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও নদী ভাঙন মোকাবেলা করে আমাদের এগিয়ে যেতে হয়। এ সকল দুর্যোগে হাজার হাজার মানুষ সর্বস্ব হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়েন। এই প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও নদী ভাঙন রোধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডেল্টা প্ল্যান ঘোষণা করেছেন। এর আওতায় ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে প্রাকৃতিক দুর্যোগ সহনীয় রাষ্ট্রে পরিণত করা হবে এবং পদ্মা নদীসহ দেশের সকল নদী ভাঙন স্থায়ীভাবে রোধ করা হবে ২০৩০ সালের মধ্যে। এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নে ৩৭ বিলিয়ন ডলার খরচ হবে। প্রতি বছর ৭ বিলিয়ন খরচ করে ১০ বছরে নদীগুলো শাসন করা হবে।

আজ শনিবার (১২ সেপ্টেম্বর) দুপুরে শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার চরআত্রা আজিজিয়া উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আয়োজিত সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। শরীয়তপুরের জেলা প্রশাসক কাজী আবু তাহেরের সভাপতিত্বে সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম, শরীয়তপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য নাহিম রাজ্জাক, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আল মামুন শিকদার, ভেদরগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবির মোল্যা ও নড়িয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাসানুজ্জামান খোকন।

২০১৮ সালে নড়িয়া ও জাজিরা উপজেলার আট কিলোমিটার এলাকাজুড়ে পদ্মার ব্যাপক ভাঙন দেখা দেয়। ভাঙনে ওই এলাকার সাড়ে পাঁচ হাজার পরিবার গৃহহীন হয়। নড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ অসংখ্য স্থাপনা বিলীন হয়ে যায়। ভাঙন ঠেকাতে এক হাজার ৯৭ কোটি টাকার একটি প্রকল্প অনুমোদন দেয় সরকার। যার মধ্যে ৫৫২ কোটি টাকা ব্যয়ে নড়িয়ার সুরেশ্বর হতে জাজিরার কায়ুম খাঁর বাজার পর্যন্ত ৮ দশমিক ৯ কিলোমিটার অংশে নদীর তীর রক্ষার কাজ। বাকি টাকা দিয়ে নদীর চর খনন করা হবে। ওই বছরের ডিসেম্বরে প্রকল্পের কাজ শুরু হয়। এ পর্যন্ত প্রকল্পটির ৪২ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। ২০২১ সালের মধ্যে প্রকল্পের কাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে।

এই প্রকল্পের কাজ পরিদর্শন করেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান এবং পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম। সকাল ১০ টায় নড়িয়া উপজেলার মুলফৎগঞ্জ পৌঁছে পদ্মা নদীর ডান তীর রক্ষা প্রকল্প পরিদর্শন করেন তাঁরা। এরপর মুজিববর্ষ উপলক্ষে নড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চত্ত্বরে বৃক্ষরোপন কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তাঁরা যোগ দেন।

পরে সুরেশ্বর প্রকল্পের বেড়িবাঁধ ও সুরেশ্বর দরবার শরীফ পরিদর্শন শেষে পদ্মার বিচ্ছিন্ন দ্বীপ নড়িয়া উপজেলার চরআত্রা আজিজিয়া উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ মাঠে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত সুধী সমাবেশে অংশ নেন ডা. এনামুর রহমান ও এ কে এম এনামুল হক শামীম।

সাম্প্রতিক খবর জানতে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা সাবস্ক্রাইব করুন YouTube

সর্বশেষ খবর

আরো পড়ুন