ঢাকা      বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ১৪ কার্তিক ১৪২৭
IMG-LOGO
শিরোনাম

প্রায়ই বিষম খাচ্ছেন! কেউ মনে করছে না-কি মারাত্মক অসুখের লক্ষণ?

IMG
21 September 2020, 11:19 AM

লাইফস্টাইল ডেস্ক, বাংলাদেশ গ্লোবাল: যেকোনো খাবার খাওয়ার সময় বিষম খান অনেকেই! ‘হয়তো কেউ মনে করছে’ এমনটাই নিশ্চয়ই ভাবেন আপনিও! তবে এই ধারনাটি কিন্তু মোটেও ঠিক নয়। খাদ্যনালী ও শ্বাসনালী পাশাপাশি থাকে। খাবার গেলার সময়ে খাবার বা পানীয় শ্বাসনালীতে না-ঢুকে খাদ্যনালীতে ঢোকে। তা স্নায়ু ও পেশির সুসংহত সমন্বয়ের ফল। তবে কোনো কারণে যখন এই সমন্বয় ব্যাহত হয়, তখন খাবার বা পানীয় শ্বাসনালীতে চলে যায়।

এতে ফুসফুস পর্যন্ত গিয়ে যাতে বিপত্তি না-ঘটায়, এজন্য শরীরের রিফ্লেক্স সিস্টেম কাশির দমক তৈরি করে। সেটাই বিষম। সাবধানে, কথা না-বলে, অন্যমনস্ক না-হয়ে খাওয়ার অভ্যাস থাকলে চট করে বিষম লাগে না। স্নায়ুবিক সমস্যা না-থাকলে এমনিতে কেউ নিয়মিত বিষম খান না। ব্যাপারটা বিক্ষিপ্ত ঘটনাই। বিষম খেলে মাথায় ফুঁ-দেয়া বা মাথা-পিঠে চাপড় মারার চল আছে। এতে সত্যিই কি লাভ হয়?

এই সময়ে পিঠ চাপড়ে দিন, এতে করে গলায় আটকানো খাবারের টুকরো নেমে আসতে পারে। মাথায় ফুঁ-দেয়ার সঙ্গে বিষমের সম্পর্ক নেই। তবে পিঠে চাপড় মারলে অনেক সময় শ্বাসনালীর মধ্যে থেকে খাবারের টুকরো বেরিয়ে আসতে পারে। তবে খেয়াল রাখতে হবে, মাথা যেন সামনের দিকে ঝোঁকানো থাকে। নইলে খাবারের টুকরো আরো ভিতরে ঢুকে বিপদ বাড়াতে পারে। সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য উপায় হলো ‘হেইমলিক ম্যানুয়েভারে’র প্রয়োগ।

যিনি বিষম খাচ্ছেন, তাকে পিছন থেকে পেটে বেড় দিয়ে এমন ভাবে জাপটে ধরতে হবে এবং নিজের শরীরের ওপর ভর করে তাকে ওঠানোর চেষ্টা করতে হবে। যাতে আক্রান্তের পেটে চাপের সৃষ্টি তৈরি হয়। সেই চাপ ডায়াফ্রামের ওপর ধাক্কা দেয়। সেই অভিঘাতে শ্বাসনালী থেকে খাবারের টুকরো বেরিয়ে আসে।

অনেক সময়েই শ্বাসনালী বন্ধ হয়ে অক্সিজেন সরবরাহ কমে আমাদের বিষম ওঠে। এই বিষম ওঠা থেকে আমাদের সাবধান থাকতে হবে। কেননা এর ফলে শরীরের অবস্থা সংকটময় হয়ে উঠতে পারে।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, গলায় খাবার বা অন্য কিছু আটকে গিয়ে দম বন্ধ হয়ে আসে। বিশ্বজুড়ে শ্বাসনালীতে খাবার আটকে প্রতি বছর কোটি মানুষ ভয়ানক বিপদে পড়েন। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে প্রতি দু’ঘণ্টায় এক জন মানুষ গলায় খাবার বা অন্য কিছু আটকে গিয়ে দম বন্ধ হয়ে মারা যায়।

ভারতের মেডিসিন বিশেষজ্ঞ দীপঙ্কর সরকার বলেন, শ্বাসনালীতে কিছু আটকে গেলে ফুসফুসে অক্সিজেন সরবরাহে বিঘ্ন ঘটে। এর ফলে নিঃশ্বাসের কষ্ট আর কাশি অবধারিত। শ্বাসনালী একেবারে বন্ধ হয়ে গেলে অক্সিজেন সরবরাহ প্রায় বন্ধ হয়ে যায়।

কাশি, কথা বলতে না পারা বা এমন কয়েকটা লক্ষণ দেখলে দ্রুত প্রাথমিক চিকিৎসার জন্যে হাসপাতালে নিয়ে যেতে হবে।

বিষম খাননি, এমন মানুষ নেই। ব্যাপারটা খুব স্বাভাবিক এবং এর নেপথ্যে রয়েছে শরীরেরই একটি রক্ষণাত্মক ভূমিকা। তবে প্রায় প্রতিবার খাওয়ার সময়েই হয়, তাহলে গুরুত্ব দিতে হবে। কেননা, স্নায়ুঘটিত সমস্যা থাকতে পারে। ডাক্তার দেখানোই বিচক্ষণতা। স্ট্রোকের পর, পার্কিনসন্স, মোটর নিউরন ডিজিজ, মায়েস্থেনিয়া গ্রেভিসের মতো স্নায়ুবিক রোগে বারংবার বিষম লাগে।

সাম্প্রতিক খবর জানতে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা সাবস্ক্রাইব করুন YouTube

সর্বশেষ খবর

আরো পড়ুন