ঢাকা      সোমবার, ১৮ জানুয়ারি ২০২১, ৪ মাঘ ১৪২৭
IMG-LOGO
শিরোনাম

শীতে লেপ-তোষক তৈরীতে ব্যস্ত টাঙ্গাইলের কারিগররা

IMG
29 November 2020, 6:54 PM

টাঙ্গাইল, বাংলাদেশ গ্লোবাল : কুয়াশার সকাল আর ঘাসের ওপর ছড়িয়ে পড়া শিশির বিন্দু জানান দিচ্ছে শীতের বার্তা। শীতের শুরুতেই টাঙ্গাইলের সকল উপজলার লেপ-তোষক তৈরীতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কারিগররা। ঋতু বৈচিত্রে রাতে কুয়াশা আর দিনে হালকা গরম থাকলেও ঠান্ডার প্রকোপ কিছুটা বাড়তে শুরু করেছে। ফলে ঠান্ডা নিবারণে টাঙ্গাইলের মানুষেরাও প্রস্তুতিও নিচ্ছেন পুরোদমে।

লেপ-তোষক তৈরীর দোকানগুলোতে গিয়ে দেখা যায়, মালিক-শ্রমিক লেপ-তোষক তৈরীর সেলাইয়ের কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন। শীত মৌসুমের শুরুতেই ক্রেতারা দোকানে পছন্দমতো লেপ-তোষক তৈরীর অর্ডার দিয়ে রেখেছেন।

লেপ-তোষক বানাতে আসা ফজিলা আক্তার লিলি বলেন, ঠান্ডা বাড়ছে, তাই পুরাতন লেপের তুলা বদলিয়ে নতুন কাপড় দিয়ে সেলাই করে নিচ্ছি। পরে একটু ঝামেলা হয় তাই আগেই লেপ-তোষক বানাচ্ছি। কালিহাতী সদরের মুন্সিপাড়া জলিল বেডিং হাউজের মালিক আব্দুল জলিল বলেন, প্রতিটি লেপ-তোষক বানাতে মজুরি হিসেবে দুইশত টাকা করে খরচ হয়। একজন কারিগর ভালো করে তৈরী করলে দিনে ২টি লেপ তৈরী করতে পারে। প্রতিটি ৪-৫ হাত লেপ ১ হাজার ২শত টাকা, তোষক ১ হাজার ৩শত এবং জাজিম ৩ হাজার ৮শত থেকে ৪ হাজার ২শত টাকা পর্যন্ত খুচরা বিক্রি করা যায়। শীতের তীব্রতা বাড়লে লেপ-তোষক বিক্রি বেশি হয়। গত বছরের তুলনায় এ বছর লেপের তুলার দাম একটু বেশি। প্রতি কেজি কালা তুলার দাম ৪০ থেকে ৫০ টাকা, শিমুল তুলা ৩৫০ থেকে ৪০০ টাকা, সাদা তুলা ১০০ টাকা ও কাপাশ তুলা ১৫০ টাকা করে কিনতে হচ্ছে।

কালিহাতী উপজেলার চারান বাজারের এক পাইকারী বেডিং হাউজের লেপ-তোষক তৈরীর কারিগর আবুল কাশেম বলেন, শীত শুরু হতে না হতেই কর্মব্যস্ততা বেড়ে গেছে। আমরা ৪-৫ হাতের একটি লেপ ২ ঘন্টায় তৈরী করে দিতে পারি। প্রতিটি লেপের মজুরি দেয় দুইশত টাকা। সারাদিনে ৬-৭টি লেপ বানাতে পারি।

এদিকে বাজারে কম্বলের তুলনায় লেপের দাম কম থাকায় এর চাহিদা বেশি হওয়ায় এবং বেশি আয়ের আশায় দিন-রাত কাজ করে যাচ্ছেন টাঙ্গাইলের লেপ-তোষক তৈরীর কারিগররা।

টাঙ্গাইলের দোকানে দোকানে ও ফুটপাতে শীতবস্ত্রের আমদানিও বেশ ভাল এখন। বিক্রি চলছে পুরোদমে। এখানকার ছবি দেখে মনে হয় শীতের বাকি নেই। ক্রেতা ও বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেল, হতদরিদ্র মানুষের গায়েই সবার আগে কামড় বাসায় শীত। তাই আগেভাগে তারা শীতবস্ত্র কিনতে চলে আসেন।

প্রস্তুতি সেরে রেখেছে বিভিন্ন শো-রুম ও শপিংমলসহ অন্যান্য মার্কেট। দেশী বিদেশী শোরুমে পাতলা জামা কাপড় সরিয়ে গরম কাপড় সাজিয়ে রাখা হয়েছে। লেপ-তোষকের দোকানগুলোতেও চোখে পড়ার মতো ব্যস্ততা। শহরের ছয়আনী বাজারের তুলা পট্রি বাজারের দোকানগুলোতে অহর্নিশ চলছে লেপ-তোষক সেলাইয়ের কাজ।

সাম্প্রতিক খবর জানতে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা সাবস্ক্রাইব করুন YouTube

সর্বশেষ খবর

আরো পড়ুন