ঢাকা      শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১, ১৫ শ্রাবণ ১৪২৮
IMG-LOGO
শিরোনাম

ঈদের ঘরোয়া সাজ

IMG
18 July 2021, 11:16 AM

লাইফস্টাইল ডেস্ক, বাংলাদেশ গ্লোবাল: ঈদে নিজেকে সুন্দর ও আকর্ষণীয় করে তুলতে নিন প্রস্তুতি। এই দিনের সাজটাকে তিন বেলায় ভাগ করে নিন এবং সেই অনুযায়ী পরিকল্পনা করুন পোশাক কী হবে। যেহেতু কভিড-১৯-এর স্বাস্থ্যঝুঁকির কথা চিন্তা করে বের হওয়া হচ্ছে না, তাই চটজলদি ঘরোয়া সাজ নিতে পারবেন সহজেই। এবারের ঈদের সাজের চলতি ধারা ও সাজটা কেমন...

সকালের সাজ
যেহেতু এটা কোরবানি ঈদ, সেহেতু কাজের চাপটাও থাকে বেশি। কারণ ঈদের সকালে নাশতা এবং কোরবানির কাজের প্রস্তুতি নিতে হয় বাড়ির মেয়েদের। তাই আরামদায়ক হয়, এমন কোনো পোশাক বেছে নিন। যেহেতু ঈদের সকালেই গোসল করার পরে শরীরে একটা স্নিগ্ধতা এবং সতেজ ভাব চলে আসে। তখন থেকেই শুরু করতে হবে মেকওভারের আগের প্রস্তুতি। প্রথমে একটা ভালো মানের টোনার ব্যবহার করব। টোনার ব্যবহারের ফলে যাদের তৈলাক্ত ত্বক, তাদের ত্বকের অতিরিক্ত তেল নিঃসরণটা বন্ধ হয়ে যাবে। তারপর একটি ভালো মানের সিরাম ব্যবহার করতে হবে। এরপর একটি ভালো মানের ভিটামিন 'ই'-সমৃদ্ধ ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে হবে, যেটা এসপিএফ ৪০+ হতে হবে। যাতে সূর্যের ক্ষতিকারক রশ্মি আপনার ত্বকে কোনো ক্ষতি করতে না পারে। ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করার পর স্কিনে সেট হতে সময় দিতে হবে। তারপর একটা ভালো মানের প্রাইমার ব্যবহার করতে হবে। প্রাইমার মেকআপকে লং লাস্টিং করতে সাহায্য করে এবং স্কিনকে ভালো রাখে।

সকালে যেহেতু কাজের চাপ থাকবে বেশি, তাই মেকআপে হালকা ফাউন্ডেশন (স্কিন টোন অনুযায়ী) লাগিয়ে নিতে হবে। আবার যেহেতু এটা সকালের সাজ, সেহেতু ফাউন্ডেশন না দিয়ে বিবি ক্রিমও ব্যবহার করতে পারেন। তারপর একটি প্রেস পাউডার দিয়ে চেপে চেপে ফাউন্ডেশন বা বিবি ক্রিমটি সেট করে নিতে হবে। তারপরে একটি সেটিং স্প্র্রে দিয়ে মেকআপটাকে সেট করার জন্য কিছুক্ষণ অপেক্ষা করতে হবে। আপনার পোশাকের সঙ্গে মিল রেখে চোখে একটি হালকা কালার শেড দিয়ে নিতে পারেন, আইলাইনার ও কাজল দিয়ে চোখের সাজটা কমপ্লিট করতে পারেন। ঠোঁটে নুড লিপস্টিক দিয়ে নিতে পারেন। এখন যেহেতু মেকআপে হাইলাইটার অনেক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। আপনি চাইলে আই ব্রো বোন, চিক বোন এবং চিনের মধ্যে একটু হাইলাইটার লাগিয়ে একটি ছোট টিপ দিয়ে সাজটি শেষ করতে পারেন। এতে আপনাকে দেখতে অনেক ন্যাচারাল লাগবে। চুলের ক্ষেত্রে যেহেতু সকালে কাজের চাপ একটু বেশি তাই চুলগুলোকে সামনে ফ্রেঞ্চ বেণি করে পেছনে একটি পনিটেল করে নিতে পারেন। আবার যাদের চুল বড় তারা সামনে ফ্রেঞ্চ বেণি করে পেছনে একটা বড় খোঁপা করে নিতে পারেন। আর এই সকালের মেকআপটাই দেখা যায় দুপুরের পর পর্যন্ত লং লাস্টিং করে।

বিকেলের সাজ
এবার বিকালের বা সন্ধ্যার মেকআপে আসা যাক। দুপুরে খাওয়াদাওয়ার পর আমরা আমাদের মেকআপটা উঠিয়ে ফেলতে পারি। যেহেতু মেকআপটা অনেকক্ষণ ছিল ফেইসে, তাই একটা ভালো মানের ফেসওয়াশ ব্যবহার করতে হবে। ফেসওয়াশের সঙ্গে একটু স্ট্ক্রাব মিক্সড করে ম্যাসাজের মাধ্যমে মেকআপ তুলে ফেলতে হবে। তারপর মুখে একটা ভালো মানের টোনার ব্যবহার করতে হবে এবং কিছুক্ষণ অপেক্ষা করতে হবে স্কিনে মিশে যাওয়া পর্যন্ত। তারপর একটি প্রাইমার ব্যবহার করে মেকআপের জন্য স্কিনটি তৈরি করে নেব। তারপর একটা হালকা বেজ তৈরি করব। একটি ভালো মানের ফাউন্ডেশন দেব স্কিন টোন অনুযায়ী। তারপর প্রেস পাউডার দিয়ে প্রেস করে করে মেকআপ সেট করে নেব। এবার সকালের মেকআপ থেকে একটু ভিন্নতা আনতে আমরা আই ব্রোতে একটু পরিবর্তন আনতে পারি। ব্রোটা অমব্রে স্টাইলে সাজাতে পারি। পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে চোখের সাজটা একটু গাঢ় করতে পারি। এবং তার সঙ্গে মিলিয়ে একটা লিপস্টিক ব্যবহার করতে পারি। তারপর একটা ব্লাশ এবং একটি হাইলাইটার ব্যবহার করব। যেহেতু কালার চুলের একটি ট্রেন্ড, তাই এই সাজের সঙ্গে আমরা চুলটা কার্লিং মেশিনের মাধ্যমে হালকা স্পাইরাল করে সেট করে নিতে পারি।

রাতের মেকআপ
রাতের বেলাতে দেখা যায় অনেক সময় দাওয়াত থাকে। তখন সাজটা একটু গর্জিয়াস না হলে চলে না। তাই রাতের মেকআপে বেজটা একটু ভারী করে নিতে হবে। প্রাইমার এবং ফাউন্ডেশনের পরে অবশ্যই একটা ভালো ম্যাট সেটিং স্প্রে ব্যবহার করতে হবে। এতে বেজটা লং লাস্টিং হবে এবং অনেক ক্ষণ সেট হয়ে থাকবে। তারপর হালকাভাবে লুজ পাউডার বা ট্রান্সলুসেন্ট পাউডার ব্যবহার করতে পারি। এতে তৈলাক্ত ত্বকে মেকআপটি অনেক ক্ষণ ধরে সেট হয়ে থাকবে। তারপর ড্রেসের সঙ্গে মিলিয়ে চোখটা একটু ডার্ক করে সাজানো যায়। যেহেতু রাতের মেকআপ তাই একটি গাঢ় রঙের লিপস্টিক বাছাই করতে হবে, যেটা ড্রেসের সঙ্গে মানানসই হবে। তারপর একটু ভালো মানের ব্লাশ এবং হাইলাইটার দিয়ে চিক বোন, চিন এবং আই ব্রো বোনে সুন্দরভাবে হাইলাইট করতে হবে এবং চুলগুলো আমরা স্ট্ক্রাইরাল বা সুন্দর করে ফ্রন্ট সেটিং করে ছেড়ে রাখতে পারি।

সাজে সহজ সমাধান
ব্ল্যাকহেডস থেকে মুক্তি ও পরিস্কার ত্বকের জন্য ফেসিয়াল করে নিন। ত্বক সব সময় পরিস্কার রাখতে হবে। বাইরে বের হওয়ার আগে ও বাসায় আসার পর মুখ ধুয়ে নিতে ভুলবেন না যেন। বাইরে থেকে এসে ক্লান্তির জন্য মুখ না ধুয়ে শুয়ে পড়লে মুখে ব্রণ বা আঁচিল উঠতে পারে। তাই সাবধান! ত্বক পরিস্কার করার পর ময়েশ্চারাইজার লাগাতে ভুলবেন না যেন। এটি মসৃণ ত্বক পাওয়ার জন্য খুব দরকার।

হাত ও পায়ের কালো দাগ দূর করতে প্রতিদিন এক্সফলিয়েট করুন। এক্সফলিয়েট করতে স্ট্ক্রাব ব্যবহার করুন সপ্তাহে দু-একবার। স্ট্ক্রাব না থাকলে বানিয়ে নিন। এক টেবিল চামচ অলিভ অয়েলের সঙ্গে এক চা চামচ চিনি মিশিয়ে স্ট্ক্রাব বানিয়ে নিন। এটি দিয়ে হাত ও পা ভালো করে ম্যাসাজ করুন সাত মিনিট।

ঠোঁট কোমল করতে এক্সফলিয়েট করুন। এক চা চামচ মধু, এক চা চামচ লেবুর রস ও এক চা চামচ চিনি মিশিয়ে স্ট্ক্রাব বানিয়ে প্রতিদিন তিন-চার মিনিট ঠোঁটে হালকা করে ম্যাসাজ করুন। ঠোঁটের কালো দাগও উঠে যাবে ধীরে ধীরে।

ঈদের দিন নিজেকে প্রাণবন্ত দেখাতে হলে আপনাকে পরিমিত ঘুমাতে হবে প্রতিদিন। সব সময়ই চেষ্টা করতে হবে রাতে যেন একটানা আট ঘণ্টা ঘুমাতে পারেন। এতে করে ত্বকের ক্লান্তি ভাব কাটবে ও ত্বক আরও উজ্জ্বল লাগবে।

চুলের যত্নের জন্য একটি ডিম মাথার ত্বক ও চুলে ম্যাসাজ করে ২০ মিনিট পর ধুয়ে নিতে পারেন। অথবা তিনটা অ্যালোভেরার পাতা থেকে ভালো করে জেল বের করে নিয়ে মধু মিশিয়ে মাথার ত্বকে লাগিয়ে ২০ মিনিট রেখে ধুয়ে নিন। নারকেলের দুধ, পাতি লেবুর রস ও নিমপাতা বাটা মিশিয়ে প্যাক বানিয়ে চুলে লাগিয়ে রাখুন। এক ঘণ্টা পর শ্যাম্পু করে ফেলুন। শেষে দুধ ও মধুর মিশ্রণ দিয়ে চুল ধুয়ে নিন। চুলের রুক্ষতা দূর করতে তেল লাগিয়ে এ প্যাকটি ব্যবহার করুন।

এক চামচ নারকেল তেল, এক চামচ কাস্টার অয়েল, এক চামচ ভিনেগার, এক চামচ শ্যাম্পু, একটা পাকা কলা ও এক চামচ মধু মিশিয়ে প্যাক বানিয়ে চুলে লাগিয়ে রাখুন ৪০ মিনিট। এরপর পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। এ ছাড়া ঘরে বসেই পেডিকিউর ও মেনিকিউর করতে পারেন।

বাংলাদেশ গ্লোবাল/এইচএম

বাংলাদেশ গ্লোবাল ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

সাম্প্রতিক খবর জানতে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ

সর্বশেষ খবর

আরো পড়ুন