ঢাকা      মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
IMG-LOGO
শিরোনাম

কোস্টারিকাকে ৭-০ গোলে উড়িয়ে বিশ্বকাপ যাত্রা শুরু স্পেনের

IMG
24 November 2022, 12:30 AM

স্পোর্টস ডেস্ক, বাংলাদেশ গ্লোবাল: বিশ্বকাপের মতো বড় মঞ্চে অভিজ্ঞ খেলোয়াড়দের অনেকেই নেই স্পেনের স্কোয়াডে। তবুও খেই হারালো না তরুণ দলটা। নিজেদের প্রথম ম্যাচে কোস্টারিকার বিপক্ষে রীতিমতো ছেলেখেলা করেছে স্পেন। লা রোজাদের আধিপত্যের বিপরীতে লক্ষ্যে একটি শটও নিতে পারেনি কেইলর নাভাসের দল। প্রথম ম্যাচেই কোস্টারিকাকে উড়িয়ে বিশ্বকাপ মিশনের শুভ সূচনা করল লুই এনরিকের শিষ্যরা।

বুধবার রাতে কাতারের আল থুমামা স্টেডিয়ামে কোস্টারিকাকে ৭-০ গোলের ব্যবধানে হারিয়েছে স্প্যানিশরা। কোস্টারিকাকে গোলবন্যায় ভাসানোর দিনে স্কোরশিটে নাম লিখিয়েছেন স্পেনের ৬ ফুটবলার। বার্সেলোনা স্ট্রাইকার ফেররান তোরেস জালের দেখা পেয়েছেন দুইবার, বাকি পাঁচজন জালে বল ছুইয়েছেন একবার করে। বিশ্বকাপ ইতিহাসে এটাই স্পেনের সবচেয়ে বড় ব্যবধানে জয়। এর আগে ১৯৫০ সালের আসরে ব্রাজিল ও ১৯৯৮ সালের আসরে বুলগেরিয়ার বিপক্ষে ৬-১ ব্যবধানে জিতেছিল তারা।

প্রথমার্ধেই কোস্টারিকার নাজেহাল অবস্থা বানায় স্পেন। নির্ধারিত ৪৫ মিনিটের খেলা শেষে ৩-০ গোলে এগিয়ে যায় লুইস এনরিকের শিষ্যরা। আল থুমামা স্টেডিয়ামে বুধবার (২৩ নভেম্বর) কোস্টারিকার বিপক্ষে শুরু থেকে আক্রমণের পসরা সাজিয়ে বসেছিল স্পেন। ১১ মিনিটের মাথায় তার ফলও পায় ২০১০ সালের চ্যাম্পিয়নরা। স্পেনকে এ সময় লিড এনে দেন দানি ওলমো। আত্মঘাতী গোলের হিসাব বাদ দিলে ২০০২ সালের পর বিশ্বকাপে স্পেনের এটি সবচেয়ে দ্রুততম গোল।

ঠিক ১০ মিনিট পরে আবার গোল হজম করে কেইলর নাভাসের দল। বাম প্রান্ত থেকে এ সময় ডি বক্স বরাবর বল বাড়িয়ে দেন বার্সেলোনা ডিফেন্ডার জর্দি আলবা। তার বল অনেকটা ফাঁকায় পান রিয়াল মাদ্রিদ ফরোয়ার্ড মার্কো অ্যাসেন্সিও। সেখান থেকে নিঁখুত শটে গোল করেন ২৬ বছর বয়সী ফুটবলার।

কিছুক্ষণ পর আলবাকে ডি বক্সের ভেতর ফেলে দেন কোস্টারিকার দুয়ার্তে। রেফারি কোনো ইতস্তত ছাড়াই পেনাল্টির সিদ্ধান্ত দেন। সেখান থেকে সফল কিক নেন ফেরান তোরেস। ব্যবধান বেড়ে দাঁড়ায় ৩-০। কোস্টারিকার বলে নিয়ন্ত্রণও ছিল খুব কম সময়।

ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধেও আধিপত্য ধরে রাখে স্পেন। বিরতি থেকে ফেরার কিছুক্ষণ পর নিজের জোড়া গোল পূর্ণ করেন তোরেস। স্পেনের হয়ে এটা তোরেসের ১৫তম গোল। ৭৪ মিনিটে জাল কাঁপান বার্সেলোনার তরুণ মিডফিল্ডার গাভি। তার গোলে অ্যাসিস্ট করেন আলভারো মোরাতা। নির্ধারিত ৯০ মিনিটের সময় গোল পান বদলি নামা কার্লোস সোলার। আর দলের শেষ গোলটি আসে আলবারো মোরাতার পা থেকে।


বাংলাদেশ গ্লোবাল/এইচএম

সবশেষ খবর এবং আপডেট জানার জন্য চোখ রাখুন বাংলাদেশ গ্লোবাল ডট কম-এ। ব্রেকিং নিউজ এবং দিনের আলোচিত সংবাদ জানতে লগ ইন করুন: www.bangladeshglobal.com

সর্বশেষ খবর

আরো পড়ুন