ঢাকা      রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
শিরোনাম

ইরানের হামলার জবাব কিভাবে দেয়া হবে তা ইসরাইলই ঠিক করবে

IMG
18 April 2024, 10:03 AM

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক, বাংলাদেশ গ্লোবাল: পুরোদমে মধ্যপ্রাচ্যে যুদ্ধ যাতে ছড়িয়ে না পড়ে, সে জন্য পশ্চিমি দেশগুলো যদিও সংযত থাকার আহ্বান জানিয়েছে। তারপরও ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বুধবার বলেছেন, গত সপ্তাহে ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র ও ড্রোন হামলার জবাব কিভাবে দেয়া হবে সেটার সিদ্ধান্ত ইসরাইল নিজেই নেবে।

যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং জি-সেভেন গ্রুপের শিল্পোন্নত রাষ্ট্রগুলি সকলেই ইরানের উপর নিষেধাজ্ঞা আরও কঠোর করার ঘোষণা দিয়েছে। এই পদক্ষেপের লক্ষ্য হচ্ছে ইসরাইলের প্রতি সমর্থন জ্ঞাপন এবং একই সঙ্গে তেহরানের বিরুদ্ধে পাল্টা ব্যবস্থা নেয়ার ইসরাইলের ইচ্ছা থেকে তাকে নিবৃত্ত রাখা।

নেতানিয়াহু ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন এবং জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যানালিনা বেইরবকের সঙ্গে বৈঠক করেন। গাজায় হামাস জঙ্গিদের বিরুদ্ধে সাতমাস ব্যাপী যুদ্ধতো আছেই, তার উপরে ইসরাইল-ইরান সংঘাত যাতে আরও বাড়তে না পারে, সে জন্য পশ্চিমি প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে তাঁরা উভয়ই ইসরাইল সফরে যান।

নেতানিয়াহুর দপ্তর বলেছে, তিনি ক্যামেরন ও বেইরবককে তাঁদের সমর্থনের জন্য ধন্যবাদ জানান। তবে তিনি বলেন, “আমি এটা স্পষ্ট করতে চাই যে, আমরা নিজেরাই নিজেদের সিদ্ধান্ত নেবো এবং ইসরাইল রাষ্ট্রটি নিজের প্রতিরক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় সব কিছু করবে”।

এর আগে, ক্যামেরন বলেছিলেন এটা এখন পরিস্কার যে ইসরাইলকে লক্ষ্য করে নিক্ষিপ্ত শত শত ক্ষেপণাস্ত্র ও ড্রোনের বিরুদ্ধে ইসরাইল পাল্টা ব্যবস্থা নেয়ার পরিকল্পনা করেছিল। যদিও ইসরাইল ও তার মিত্ররা ঐ সব ক্ষেপণাস্ত্র ও ড্রোনের প্রায় সবগুলোই ভূপাতিত করেছে। সিরিয়ার রাজধানী দামেস্কে ইরানি দূতাবাসে গত ১ এপ্রিল ইসরাইলের বিমান আক্রমণে ইরানি সামরিক কর্মকর্তারা নিহত হওয়ার প্রতিশোধ নিতে শনিবার ইরান এই হামলা চালায়।

বেইরবক বলেন উত্তেজনা বৃদ্ধি “ কারও জন্য উপকারে আসবে না, ইসরাইলের নিরাপত্তার জন্য নয় , হামাসের হাতে যে কয়েক ডজন ইসরাইলি পণবন্দি হয়ে রয়েছে তাদের জন্য নয়, গাজায় যন্ত্রণাদগ্ধ জনগণের জন্য নয় , ইরানের বহু মানুষ যারা নিজেরাই শাসকের অত্যাচারে যন্ত্রণা ভোগ করছে তাদের জন্য নয় এবং ঐ অঞ্চলের তৃতীয় দেশগুলি যারা শান্তিতে থাকতে চায় , তাদের জন্যও নয়”।

ইসরাইল বলছে তাদের বিশ্বাসযোগ্যতা রক্ষার জন্য তাদের পাল্টা জবাব দিতেই হবে।

তেহরানের অদূরে জাতীয় সামরিক কুচকাওয়াজে ভাষণ দেয়ার সময়ে ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি ইসরাইলের পাল্টা ব্যবস্থা নেয়ার ব্যাপারে দেশটিকে হুশিয়ার করে দিয়ে বলেন ইরান তার পরপরই “ব্যাপক ও কঠোর জবাব দেবে”।

যুক্তরাষ্ট্র বলেছে যে আগামি দিনগুলিতে ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র ও ড্রোন কর্মসূচীকে লক্ষ্য করে তারা নতুন নিষেধাজ্ঞা আরোপের পরিকল্পনা করছে এবং আশা করছে যে তার মিত্ররা অনুরূপ ব্যবস্থা নেবে। ব্রাসেলস’এ এক শীর্ষ বৈঠকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্যরা এ বিষয়ে আলোচনা করবেন বলে কথা আছে। তা ছাড়া ইটালিতে জি-সেভেনের আলোচ্যসূীতেও নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি রয়েছে।

সবশেষ খবর এবং আপডেট জানার জন্য চোখ রাখুন বাংলাদেশ গ্লোবাল ডট কম-এ। ব্রেকিং নিউজ এবং দিনের আলোচিত সংবাদ জানতে লগ ইন করুন: www.bangladeshglobal.com

সর্বশেষ খবর

আরো পড়ুন