ঢাকা      রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১
শিরোনাম

জন্মদিনে শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় সিক্ত জাতীয় কবি

IMG
25 May 2024, 11:32 AM

ঢাকা, বাংলাদেশ গ্লোবাল: জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২৫তম জন্মবার্ষিকীতে তার সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন সর্বস্তরের মানুষ। জন্মজয়ন্তীতে আজ শনিবার সকাল থেকেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের পাশে কবির সমাধিতে বিভিন্ন শিক্ষা, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সংগঠন শ্রদ্ধা নিবেদন করে।

সকাল পৌনে ৭টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক এ এস এম মাকসুদ কামালের নেতৃত্বে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীরা কবির সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও ফাতেহা পাঠ করেন। এছাড়া সমাধি প্রাঙ্গণে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।


সকাল ৭টার দিকে বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীসহ দলের নেতাকর্মীরা জাতীয় কবিকে ফুলেল শ্রদ্ধা জানান। এ সময় বিএনপির সাংস্কৃতিক সম্পাদক আশরাফ উদ্দিন আহমেদ উজ্জ্বল, নির্বাহী কমিটির সদস্য সাঈদ সোহরাব, জাসাসের আহ্বায়ক হেলাল খান ও সদস্য সচিব জাকির হোসেন রোকন প্রমুখ রিজভীর সঙ্গে ছিলেন।

বিএনপির পর ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা কবির সমাধিতে যান। সেখানে প্রথমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে এবং পরে দলের পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান তারা। আওয়ামী লীগ নেতাদের মধ্যে আরও ছিলেন দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস সবুর প্রমুখ।

এরপর বিভিন্ন সংগঠন কবির সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায়।

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে উপাচার্য অধ্যাপক এ এস এস মাকসুদ কামাল বলেন, “জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম সারাজীবন অসাম্প্রদায়িকতা ও মানবিকতার চর্চা করেছেন এবং সাম্যবাদের পক্ষে অসংখ্য কবিতা লিখেছেন। তিনি ব্রিটিশ রাজের বিরুদ্ধে কবিতা লিখে কারাভোগ করেছেন। তিনি মানুষের মুক্তির জন্য কথা বলেছেন, লিখেছেন। সেজন্য নজরুল সর্বকালের জন্য প্রাসঙ্গিক কবি। এই প্রাঙ্গিকতার কারণেই আমরা নজরুলকে ধারণ করি, চর্চা করি।

“নজরুলকে আমরা তখনই সর্বাত্মকরণে ধারণ করতে পারব, যখন আমরা জাতীয় জীবনে অসাম্প্রদায়িকতাকে সামগ্রিকভাবে প্রতিষ্ঠা করতে পারব। মানুষের মধ্যে সাম্যতা ও ভেদাভেদ এগুলো সমাজে সহনশীল পর্যায়ে এসেছে। কিন্তু সমাজে এখনও অসাম্প্রদায়িকতা আছে, মানুষের মুক্তির বিরুদ্ধে মানুষজন আছে।”

তিনি বলেন, “আমরা যদি বিশ্ব সমাজকে দেখি, গাজায় আধিপত্যের নামে মানুষকে হত্যা করা হচ্ছে। সেই হত্যা করা হচ্ছে একটি গোষ্ঠির ধর্মকে প্রতিষ্ঠিত করার নামে, তাদের আধিপত্যকে প্রতিষ্ঠিত করার নামে। সেজন্যে নজরুলের সাম্যের গান, তার প্রতিবাদ, তার যুদ্ধে যাওয়া আজও প্রাসঙ্গিক। আমাদের তরুণ প্রজন্মের মাঝে যদি আমরা এগুলো ছড়িয়ে দিতে পারি, তাহলেই আমরা নজরুল চর্চাকে প্রাতিষ্ঠানিক করতে পারব।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, “জাতীয় কবির জন্মতিথিতে আমরা বলব, বাঙালি জাতির স্বাধিকার সংগ্রাম, আমাদের মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতা সংগ্রামে আমাদের প্রেরণার উৎস হচ্ছেন কবি নজরুল। যার কবিতা, গান স্বাধীনতা ও স্বাধিকার সংগ্রামে আমাদের অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে। আমরা আজ তাকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করি।”

তিনি বলেন, “আজকের এদিনে বলতে চাই, আমরা বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ী হয়েছি। কিন্তু সেই বিজয়কে সুসংহত করার এখনো অনেক কাজ বাকি। বিজয়কে সুসংহত করার পথে বাধা দিতে বিএনপির পৃষ্ঠপোষকতায় বাংলাদেশের কিছু সাম্প্রদায়িক অশুভ শক্তি তৎপর। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা সাম্প্রদায়িকতার বিষবৃক্ষকে সমূলে উৎপাটিত করে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ব, সেটিই হবে নজরুলের প্রতি আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলি।”

সমাধিতে জাতীয় কবিকে শ্রদ্ধা নিবেদন করে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি, বাংলা একাডেমি, নজরুল গবেষণা কেন্দ্র, নজরুল একাডেমি, কবি কাজী নজরুল ইনস্টিটিউট, জাতীয় জাদুঘর, নজরুল চর্চা কেন্দ্র ‘বাঁশরী, বাসদ, আওয়ামী যুবলীগ, ছাত্রলীগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হলসহ বিভিন্ন ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠান।



বাংলাদেশ গ্লোবাল/এফআর

সবশেষ খবর এবং আপডেট জানার জন্য চোখ রাখুন বাংলাদেশ গ্লোবাল ডট কম-এ। ব্রেকিং নিউজ এবং দিনের আলোচিত সংবাদ জানতে লগ ইন করুন: www.bangladeshglobal.com

সর্বশেষ খবর

আরো পড়ুন